Connect with us

Google সম্পর্কে কিছু অজানা এবং মজার তথ্য

প্রযুক্তির বিনোদন

Google সম্পর্কে কিছু অজানা এবং মজার তথ্য

Google.com – বিশ্বের সবচেয়ে বড় সার্চ ইঞ্জিন। এই গুগলের এমন কিছু মজার তথ্য আছে যা অনেকেই জানে না। সেরকম কিছু মজার তথ্য আজ এখানে তুলে ধরবো।

google-management

১. Google -এর নামকরণঃ গুগল (google) নাম নিয়েই আছে মজার ইতিহাস। গুগল প্রতিষ্ঠা কালে এর নাম রাখা হয়েছিল Googol. যার অর্থ হল সব চেয়ে বড় নাম্বার, মানে “10 to the power 100”. কিন্তু এই ব্র্যান্ড নামটি টি রেজিস্ট্রেশনের সময় শেন এন্ডারসন স্পেলিং মিসটেক করে Googol এর পরিবর্তে Google টাইপ করেন, আর ১ ঘন্টার মধ্যে তা এই নামেই রেজিস্টারড হয়ে যায়, এবং পরবর্তীতে এটা আর পরিবর্তনও করা হয় নি। এভাবেই চলতে থাকে এবং এটাই এখন স্পেলিং মিসটেক এর ক্ষেত্রে একটি বড় মিসটেক এবং বড় ইতিহাসও। বর্তমানে গুগলের গুরুত্ব বিবেচনা করে তা ইংরেজি শব্দকোষে অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে।

google homepage design

২. গুগল এর হোমপেইজ: গুগল এর হোমপেইজ এর সাধারণ ডিজাইন সেই প্রতিষ্ঠা কাল থেকে। এর মূল রহস্য হল, গুগল এর প্রধান উদ্যোক্তা Sergey BrinLarry Page এর কেউই HTML জানতেন না। Google.com চালু হবার পর থেকে অনেকদিন পর্যন্ত্য এর হোমপেইজে কোন সাবমিট বাটন ছিলোনা এবং সার্চ করতে হত রিটার্ন কি-তে ক্লিক করে।

৩. I’m Feeling Lucky” বাটন: গুগলের হোম পেইজে “I’m Feeling Lucky” বাটনটি রাখার জন্য গুগুলের প্রতি বছর ১১০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় করতে হয়। যদিও এই বাটনটি ব্যবহার হয় না বললেই চলে। শুধুমাত্র এই বাটনটি গুগলের জন্যে লাকি মনে করে বাদ দেয়া হচ্ছে না, কারন একবার এই বাটনটি বাদ দেওয়ায় কোনো-কারনে গুগলের উপার্জন কমে যায়।

google first tweet

৪.  গুগলের প্রথম টুইট: গুগল প্রথম যে টুইটটি টুইটারে করেছিল তা হল “I’m 01100110 01100101 01100101 01101100 01101001 01101110 01100111 00100000 01101100 01110101 01100011 01101011 01111001 00001010.” যার প্রথম দুইটি অক্ষর বাদে অন্যগুলো বাইনারি সংখ্যা। এটাকে ডিকোড করলে দাড়ায় “I’m feeling lucky.”

৫. ভিন্ন লখ্যঃ  যখন বিশ্বের অন্যান্য কোম্পানি গুলির লক্ষ্য মানুষ-কে কিভাবে আরও বেশি সময় অনলাইনে রাখা যায়। কিন্তু গুগল-ই হয়ত একমাত্র কোম্পানি যারা এই লক্ষ নিয়ে কাজ করছে যাতে মানুষ অনলাইনে আরও কম সময় কাটায়

google search index

৬. গুগলের সার্চ ইনডেক্স: গুগলের সার্চ ইনডেক্স এর আকার ১০০ মিলিয়ন গিগাবাইট, ঐ পরিমান তথ্য যদি আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী হার্ড-ড্রাইভে রাখা হত তাহলে তার জন্যে ১ টেরাবাইটের ১ লক্ষ হার্ড-ড্রাইভ লাগতো।

google first doodle

৭. গুগল ডুডুলঃ এই ডুডুলটিই হল গুগুলের প্রথম ডুডুল। যেটা ১৯৯৮ সালে সবাই অফিসের বাইরে আছে এটা বোঝানোর জন্য তৈরি করা হয়েছিল।

google earning

৮. গুগলের আয়ঃ গুগলের প্রধান আয়ের সোর্স ও সবথেকে বেশি আয় হয় বিজ্ঞাপন থেকে। ২০০৬ অর্থবছরে, কোম্পানী জানায় ১০.৪৯২ বিলিয়ন বিজ্ঞাপন থেকে এবং লাইসেন্স ও অন্যান্য খাত থেকে ১১২ মিলিয়ন আয় হয়। ২০১১ সালে গুগল এর মোট আয়ের ৯৬% ভাগ এসেছিল শুধুমাত্র বিজ্ঞাপন থেকে, যার মোট পরিমান ছিল $৩6.531 বিলিয়ন ডলার।  ২০১২ সালে $43,686 বিলিয়ন ডলার। এখানে গিয়ে প্রত্যেক বছরের গুগলের আয় দেখতে পারেন।

৯. গুগল ব্যবহারকারীর গুরত্বঃ গুগলে যদি কেউ ফিডব্যাক মেইল পাঠায়, গুগুলের কোন একজন কর্মকর্তা তা অবশ্যই পড়বে।

google jobs

১০. গুগলে চাকরিঃ গুগলে চাকরি পাওয়া যদিও বর্তমানে ভাগ্যের ব্যপার। যদি আপনি গুগুলে চাকরি পান তা হলে আপনাকে অফিস করার জন্য কোন ড্রেস ও টাইম মেইনটেন করতে হবে না। চাইলে আপনি পাজামা পান্জ্জাবি পরে অফিস করতে পারবেন এবং আপনার পছন্দমতো সময়ে।

তথ্য গুলো ভালো লাগলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন ও আপনি নতুন কোনো তথ্য জানলে মন্তব্যে লেখুন।
ধন্যবাদ!

Continue Reading

ইনি ছোটবেলা থেকেই তথ্য-প্রযুক্তি-কে ভালোবাসেন, সব সময় প্রযুক্তি নিয়েই থাকেন। স্বাধীন ভাবে চলতে পছন্দ করেন। এখন কম্পিউটার নিয়ে পড়াশুনা করছেন ও তার পাশাপাশি ওয়েব ডেভেলপর হিসেবে ফ্রীল্যান্সিং করেন।

Click to comment

You must be logged in to post a comment Login

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More in প্রযুক্তির বিনোদন

Advertisement

বিভাগ সমূহ

টেক-বেঙ্গল পোল

"বাঙালীরা এখনো তথ্য প্রযুক্তি -তে পিছিয়ে" আপনি কি মনে করেন ?

View Results

Loading ... Loading ...

সেরা টেক বাঙালী

To Top