Connect with us

মুঠোফোন রিভিউঃ নোকিয়া লুমিয়া ৫২০

রিভিউ

মুঠোফোন রিভিউঃ নোকিয়া লুমিয়া ৫২০

আন্ড্রয়েড ও iOS এর জনপ্রিয়তার ভিড়ে বাজার হারিয়ে ফেলা নোকিয়া ও মাইক্রোসফটের গাঁটছড়া বাঁধার ফসল নোকিয়া লুমিয়া সিরিজের ফোনগুলি । আর্বিভাবের প্রথম কিছুদিন জনপ্রিয়তা অর্জন করলেও অচিরেই অ্যান্ড্রয়েডের মত ওপেন সোর্স অপারেটিং সিস্টেমের সাথে তীব্র প্রতিযোগিতায় ক্রমশ পিছিয়ে পড়তে থাকে মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ মোবাইল ফোন অপারেটিং সিস্টেম ।

nokia lumia

বাজারে ফিরে আসতে তাই মাইক্রসফট হাত ধরে আরেক পিছিয়ে পড়া মোবাইল ফোন নির্মাতা সংস্থা- নোকিয়ার। বিগত দু দশক উপমহাদেশীয় বাজারে নিজের আধিপত্য ধরে রাখতে নোকিয়ার প্রধান হাতিয়ার ছিল – সিম্বিয়ান অপারেটিং সিস্টেম, অসাধারন গঠন (built quality), ও দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারী । কিন্তু অ্যান্ড্রয়েড চালিত অতন্ত্য সহজল্ভ্য স্মার্ট ফোনের  আধিপত্যে ক্রমশ কোনঠাসা হয়ে পড়া ফিনল্যান্ডের সংস্থাটির হাতে ঘুরে দাঁড়ানর একমাত্র উপায় ছিল নিজেদের অপারেটিং সিস্টেম  আরো উন্নততর করা।

মাইক্রোসফট ও নোকিয়ার সামনে প্রথম ও প্রধান লক্ষ্য ছিল উইন্ডোজ চালিত ফোন গুলিকে সাধারন মধ্যবিত্তের সাধ্যের মধ্যে নিয়ে আসা। এই উদ্যোগের প্রথম ফসল লুমিয়ার প্রথম প্রজন্মের উইন্ডোজ ৭.৫ চালিত ফোনের সিরিজটি – লুমিয়া ৫১০, ৬১০,৭১০, ইত্যাদি । আবির্ভাবের সাথে সাথে বাজারে সাড়া ফেললেও এই ফোন গুলির কিছু নিজেস্ব সীমাবদ্ধতা ছিলই- উইন্ডোজের মত একটি ক্লোজড OS,  external memory card support না করা, apps এর অভাব ইত্যাদি।

নোকিয়া লুমিয়ার দ্বিতীয় প্রজন্মের ফোনগুলি এই সীমাবদ্ধতা অনেকটাই কাটিয়ে উঠেছে।

আজ লুমিয়া সিরিজের যে ফোনটি নিয়ে আলোচনা করব সেটি লুমিয়া সিরিজের সবচেয়ে সহজলভ্য ও ব্যাপক জনপ্রিয় একটি ফোন । একই সাথে এটি সবচেয়ে সাশ্রয়ী উইন্ডোজ ফোন ও বটে।

nokia lumia 520

ফোন মডেলঃ নোকয়া লুমিয়া ৫২০

লুমিয়া ৫২০ উইন্ডোজ ৮ অপারেটিং সিস্টেম চালিত ফোন । গঠন গত ভাবে এটি লুমিয়া সিরিজের বাকি ফোন গুলির মতই – অর্থাৎ পেছনের দিকটা টেবিলের মত… নোকিয়ার চিরাচরিত অসম্ভব সুন্দর built quality.  পুরোটাই প্লাস্টিক দিয়ে তৈরী হলেও দেখতে যে কোন দামী প্রিমিয়াম ফোনের মতই । ফোনের ব্যাক প্যানেল লাল, নীল, সায়ান, হলুদ ,  লেমন ইত্যাদি আকর্ষনীয় রঙে পাওয়া যায়। এটি রাবাইজড, সাধারন সস্তা প্লাস্টিকের চেয়ে অনেকটাই  নরম । ফোন টির রেয়ার সাইড (পেছনের দিকে) একটি ৫ মেগাপিক্সেলের ক্যমেরা রয়েছে, যদিও কোন ফ্ল্যশ লাইটের ব্যবস্থা রাখা হয় নি। ক্যমেরাটি মোটের ওপর চলনসই। লুমিয়া সিরিজের কিছু বিখ্যাত লেন্স অ্যাপ্সের স্বাদ এই ফোনেও পাবেন যেমন – সিনেমাস্কোপ, স্মার্ট শুট ইত্যাদি। ৭২০ পি সেমি হাই ডেফিনেশান মোডে ভিডিও তুলতে সক্ষম এই ক্যামেরা টি। লুমিয়া ৫২০ কোন ফ্রন্ট ফেসিং ক্যমেরা নেই । তাই ভিডিও চ্যাট করা একটু মুশকিল ।

ক্যামেরা জন্য ডেডিকেটেড বাটন , ফোন লক / আনলক বাটন , এবং ভলিউম রকার সবগুলিই ফোনের ডানদিকে । বামদিকে কোন বাটন নেই । উপরের দিকে রয়েছে  একটি ৩.৫ MM অডিও জ্যাক ।
লুমিয়া ৫২০ গর্ভে রয়েছে একটি মাইক্রো সিম স্লট, মাইক্রো এস.ডি কার্ড (মেমোরি কার্ড স্লট) ও একটি ১৪২০ মিলি অ্যাম্পেয়ারের  ব্যাটারী।
সামনের WVGA 800X480 IPS display মন্দ নয়। ৪” আয়তনের এই স্ক্রিনটির viewing angle মোটের ওপর ভালই ।

Lumia-520

স্ক্রীনের একেবারে নীচের দিকে ৩ টি সফট কী রয়েছে । ব্যাক কী, উইন্ডোজ কী ও সার্চ কী। ফোনটি ব্যাবহার করতে হলে এই ৩ টী কীর ব্যাবহার অত্যাবশ্যক ।

ফোনটি পরিচালিত হয় ১ গিগাহার্জের ডুয়াল কোর প্রসেসর, ৫১২ মেগাবাইট র‍্যাম দ্বারা। উইন্ডোজ ৮ দ্রত গতির একটি OS আর ক্লোজড( সোর্স কোড অ্যাক্সসেবল নয়) হওয়ার কারনে ভাইরাস বা বাগসের সম্ভাবনা একেবারেই নেই। অফুরন্ত গান, ছবি, ভিডিও ও অন্যান্য ডকুমেন্টস রাখতে পারেন লুমিয়ার ৮ গিগাবাইট ইনবিলট (৪ গিগাবাইট ইউজার অ্যাক্সেসেবল) আর ৬৪ গিগাবাইট পর্যন্ত এক্সাটারনাল মেমোরিতে।

এবার আসা যাক লুমিয়া ৫২০ ইউজার ইনটারফেস প্রসঙ্গে । লক স্ক্রীনের পর্দা সরালেই দেখা যাবে কতকগুলি বর্গাকার চৌকো- যেগুলিকে আদতে লাইভ টাইলস বলে । লুমিয়া ৫২০ হোম স্ক্রীনে থাকা প্রত্যেকটি অ্যাপ্পলিকেশন ই থাকে টাইলসের আকারে । প্রয়োজন অনুযায়ী এই টাইলগুলিকে রিসাইজ অর্থাৎ আয়তন কমান- বাড়ান যায় যা পূর্ববর্তী  উইন্ডোজ ৭.৫ (ম্যাঙ্গো) ভার্সনে করা যেত না।

সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং জন্য উইন্ডোজের চেয়ে ভাল OS এর হয় না। বিশেষত, ফেসবুক, টুইটার ইন্টিগ্রেশন এক কথায় অসাধারন। “People” নামের টাইলসটি ইউজারের সব আক্যাউন্টগুলির আপডেট এক সাথে  এনে হাজির করে, যা এককথার অনবদ্য। নেট ব্রাউজ করার জন্য এতে আছে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ১০, এছাড়াও উইন্ডোজ স্টোর থেকে পছন্দমত ব্রাউসার ডাউলোড করে নেওয়া যায়। অফিস ডকুমেন্ট (word, excel, power point , share note) দেখা ও এডিট করার জন্য অফিস ১০ এর মোবাইল ভার্সনটি তো আছেই ।

শেষে আসি, লুমিয়া ৫২০ সবচেয়ে লোভনীয় নোকিয়া মিউজিক অ্যাপসের কথায় … পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের কয়েক লক্ষ গানের সম্ভার থেকে বিনামূল্যে ইচ্ছেমত গান ডাউনলোড করার অনুমতি পাওয়া যায় প্রথম ৩ মাস।

তাহলে এর দেরী কেন !!! যদি আপনার বাজেট ১০,০০০ টাকার কম হয় আর যদি আপনি একঘেয়ে আন্ড্রয়েডের জীবনে একটু স্বাদ বদল করতে চান , তাহলে অবশ্যই আপনার প্রথম পছন্দ হওয়া উচিৎ লুমিয়া ৫২০.

Continue Reading
Click to comment

You must be logged in to post a comment Login

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More in রিভিউ

Advertisement

বিভাগ সমূহ

টেক-বেঙ্গল পোল

"বাঙালীরা এখনো তথ্য প্রযুক্তি -তে পিছিয়ে" আপনি কি মনে করেন ?

View Results

Loading ... Loading ...

সেরা টেক বাঙালী

To Top